For a better experience please change your browser to CHROME, FIREFOX, OPERA or Internet Explorer.

নোয়াখালী উপকূলে সমুদ্র বন্দর স্থাপন এখন সময়ের দাবি

চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙ্গরে জাহাজ জট, পণ্য নিয়ে আসা জাহাজের বার্থিং পেতে সময়ক্ষেপন, পণ্য হ্যান্ডলিং ডেলিভারিতে ধীরগতি, লাইটার জাহাজ ও জেটি সংকটসহ বিভিন্ন সমস্যায় জর্জরিত এখন চট্টগ্রাম বন্দর। যার ফলে দেশের আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্য চরমভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এর খেসারত দিতে হচ্ছে শুধু ব্যবসায়ীদেরকে নয় রাষ্ট্রকেও। এমতাবস্থায় নোয়াখালী উপকূলে মেঘনা মোহনায় চেয়ারম্যানঘাট এলাকায় একটি গভীর সমুদ্র বন্দর স্থাপন অতীব জরুরি হয়ে পড়েছে।
চট্টগ্রাম বন্দরে এখন মাত্র ১৯ টি জেটি আছে, যে হারে আমদানি-রপ্তানি বেড়ে চলছে তাতে আগামী দশ বছর পর ৬০টি জেটির প্রয়োজন হবে বলে বন্দর ব্যবহারকারী ব্যবসায়ীগণ জানিয়েছেন। এমতাবস্থায় প্রাথমিকভাবে জেটি নির্মাণের পরিকল্পনা মাথায় রেখে এখনি প্রস্তাবিত নোয়াখালী সমুদ্র বন্দর স্থাপনের প্রকল্প একনেকে পাস করা হোক।
পণ্য লোড-আনলোড করতে জাহাজকে চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দরে অপেক্ষা করতে হয় যেটি অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক। বিশ্বের কোন আধুনিক সমুদ্রবন্দরে এমনটি চলতে পারেনা। বাংলাদেশকে যদি উন্নত দেশের কাতারে পৌঁছাতে হয় তাহলে আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্যে অবশ্যই গতি আনতে হবে। আর সেক্ষেত্রে নোয়াখালী উপকূলে মেঘনা মোহনায় চেয়ারম্যান ঘাট এলাকায় একটি নতুন সমুদ্র বন্দর স্থাপন অবশ্যই করতে হবে। নোয়াখালী উপকূল এলাকায় চেয়ারম্যান ঘাট এলাকায় সমুদ্র বন্দর স্থাপিত হলে এটি হবে বাকি তিনটি সমুদ্রবন্দরের চাইতে রাজধানী ঢাকার কাছের একটি সমুদ্র বন্দর ।
সুতরাং নোয়াখালী উপকূলে সমুদ্র বন্দর স্থাপনের জন্য অতি দ্রুত নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের দিয়ে একটি কমিটি গঠন করে ফিজিবিলিটি স্টাডি করে ডিপিপি প্রণয়ন পূর্বক প্রকল্প একনেকে পাশ করার জন্য আমরা নোয়াখালীবাসী সদাশয় সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, মাননীয় সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং মাননীয় নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী মহোদয়ের নিকট আকুল আবেদন জানাই।

Top